চুলের যত্নে নিম পাতা ব্যবহার ও উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

ত্বকের যত্নে নিম পাতার ১০টি উপকারিতাচুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার পাশাপাশি চুলের জন্য নিম পাতার তেলের উপকারিতা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে হয়তো আপনারা জানতে আগ্রহী তাহলে আপনি একদম ঠিক কার আজকের এই আর্টিকেলটিতে আমি নিমপাতার ব্যবহার সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

চুলের যত্নে নিম পাতা ব্যবহারের উপকারিতা সম্পর্কে  বিস্তারিত জানুন

নিমপাতা আমাদের চুলের যত্নে কিভাবে উপকার করে সেই সকল বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব তাই পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ার জন্য অনুরোধ রইল।

ভূমিকা

নিম গাছ হলো মূলত ঔষধি গাছ এই গাছে রয়েছে অনেক ওষুধই গুনাগুন  ঠিক তেমনি এই গাছ রূপচর্চায়ও অনেক ভুমিকা রয়েছে। নিম পাতা ব্যবহারে চুলের অনেক উপকার করে যেমন চুলের আগা ভেঙে, যাওয়া চুল উঠে যাওয়া,চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়া এমনকি মাথায় খুশকি দূর করার ক্ষেত্রেও নিমপাতার রয়েছে অশেষ ভূমিকা। রূপচর্চার প্রতিটি ক্ষেত্রেই রয়েছে নিম পাতার অশেষ উপকার।

আরও পরুনঃ খালি পেটের নিম পাতা খাওয়ার উপকারিতা

নিমের পাতায় উপস্থিত কোলাজেন, এন্টিঅক্সিডেন্ট, ফ্যাটিএসিড, ওমেগা থ্রি, ভিটামিন ই ক্যাপসুল এর মত অনেক ওষধি গুনাগুন এবং উপকারী উপাদান যা আমাদের চুলকে করে তোলে হেলদি, ঘন, কালো এবংমজবুত তাই চুলের যত্নে নিম পাতা ব্যবহার করা সকলের উচিত।

 নিম পাতা বাটা চুলে দিলে কি হয়?

চুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার করা হয়। চুল পড়ার সমস্যা নারী পুরুষ উভইয়ের হয়। অনেকের অল্প বয়সেই চুল পড়ে যার দরুন তারা অনেক ওষুধ ব্র্যান্ডের তেল ব্যবহার করে কিন্তু তেমন কোন ফলাফল পায় না। চুল মূলত এন্টিঅক্সিডেন্ট এর অভাবে উঠে যায়। চুলের গোড়ায় অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি এর অভাবে গর্ত তৈরি হয় যার ফলে চুল উঠে যায়।

আরও পরুনঃ ত্বকের যত্নে দুধ ও কাঁচা হলুদের ব্যবহার

কাঁচা নিমপাতা বাটা চুলে দিলে চুলের গোড়া শক্ত হয়। চুলের গোড়াতে এন্টিঅক্সিডেন্ট পৌঁছে যায় যার ফলে চুলের টিস্যু গুলোর গর্ত পূরণ হয়ে যায় তাহলে চুল পড়া কমে যায়। নিম পাতাতে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে এবং ফ্যাটি এসিড থাকে যা চুলকে পুষ্টিকর ও সিলকি করে তোলা। তাই চুলের যত্নে নিমপাতা ব্যবহারের উপকারিতা অপরিসিম।

চুলে নিম পাতার উপকারিতা

নিম পাতা ঔষধি গুন সম্পন্ন। গ্রাম্য ভাষায় কথিত রয়েছে যে, যার বাড়িতে নিমের গাছ রয়েছে তার বাড়িতে ডাক্তার বসবাস করে। চুলকে সুন্দর সিল্কি ঝলমলে সতেজ রাখতে নিম পাতার উ ব্যবহার অনেক। নিম পাতার ব্যবহারের ফলে চুলের যে সকল উপকার পাওয়া যায় সেগুলো হলো,

  • চুলে নিমপাতা বেটে ব্যবহার করলে নতুন চুল গজায়
  • মাথায় বিভিন্ন রকমের ফুসকুড়ি এলার্জি বা চুলকানি জনিত সমস্যা থাকলে যদি নিমপাতা বেটে মাথায় লাগানো হয় তাহলে সে সকল সমস্যা থেকে দ্রুত উপশম পাওয়া যায়।
  • নিম পাতাতে প্রচুর পরিমাণ এন্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যার ফলে  চুলের গোড়াতে গিয়ে চুলকে পুষ্টি সরবরাহ করে।
  • নিম পাতার তেল তৈরি করে চুলে ব্যবহার করলে চুল লম্বা হয় ।
  • নিম তেলে উপস্থিত ভিটামিন ই ত্বককে সতেজ রাখে। ত্বকের হাইড্রেট রাখতে ভিটামিন ই ক্যাপসুল এর বিকল্প হিসেবে নিম তেল ব্যবহার করা যায়।
  • নিম পাতার পেস্ট তৈরি করে ছেকে নিম পাতার রস মাথায় ব্যবহার করলে চুলের রুক্ষতা শুষ্কতা ভাব কমে যায় এবং চুল হয়ে ওঠে সিল্কিও স্মুথ।

নিম তেল চুলে দিলে কি হয়?

নিমের পাতা নিমের ডাল নিমের গাছের ছাল এমনকি নিমের কাছে এমন কোন অংশ নেই যেটি উপকারী নয়। নিমের পাতা দিয়ে যদি তেল তৈরি করা হয় আর সেই তেল যদি নিয়মিত চুলে ব্যবহার করা হয় তাহলে চুলের গোড়া শক্ত হবে, চুল স্মুথ হবে লম্বা হবে এবং এলার্জির জনিত যদি কোন সমস্যা থাকে মাথায় তবে সে সকল সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

নিমের পাতা চুলের জন্য খুবই উপকারী। চুলকে সুস্থ স্বাভাবিক এবং সতেজ রাখতে আমাদের প্রতিদিনের রূপচর্চার তালিকায় নিম পাতা রাখা  আবশ্যক। অনেকের মাথায় বিভিন্ন রকমের এলার্জির জনিত সমস্যা, অথবা ছত্রাক জনিত সংক্রমণ ঘটে কিন্তু নিমের পাতা ব্যবহার করলে নিমের পাতায় উপস্থিত এন্টিঅক্সিডেন্ট সে সকল ছত্রাকের বিরুদ্ধে ধ্বংস করতে। 

চুল পড়া রোধ করতে, চুলের খুশকি দূর করতে চুলকে লম্বা ও ঘন করতে চুলের যত্নে নিতে হবে। চুলের যত্ন ঘরোয়া ভাবে নিতে হলে  অবশ্যই নিম পাতার ব্যবহার করতে হবে কারণ চুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহারের সুফল আমি নিজে প্রত্যক্ষ করেছি। তাই আমি ব্যক্তিগতভাবে আপনাদেরকে পরামর্শ দিব যে আপনারা অবশ্যই নিমপাতা ব্যবহার করবেন।

নিম তেল কি শুষ্ক চুলের জন্য ভালো?

শীতকালে চুল বেশি শুষ্ক হয়ে যায় যার ফলে চুলের আগা ভেঙে যায় কেমন যেন রুক্ষ রুক্ষ ভাব চলে আসউ। এই সকল সমস্যা হয় মূলত এন্টিঅক্সিডেন্টের অভাবে। যখনই চুল পর্যাপ্ত পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ,ভিটামিন সি,  ফ্যাটি অ্যাসিড, অ্যালকালয়েড সরবরাহ না পাই তখনই চুলে শুষ্ক ভাব চলে আসে।

নিম পাতাতে প্রচুর পরিমাণ ফ্যাটি অ্যাসিড, ওমেগা থ্রি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন ই ইত্যাদি প্রয়োজনীয় উপাদান থাকে। মেথি দানা ও নিম পাতা একসাথে মিশ্রিত করে নিমের তেল তৈরি করে যদি নিয়মিত চুলের গোঁড়াই দেওয়া হয় তাহলে  চুলের স্কাল্প সুস্থ থাকে। যার ফলে চুল পড়া কমে যায় এবং নতুন চুল গজানো শুরু হয়।

চুলের যত্নে নিম তেল 

ঘন চুল কে না চায়, সকলেই চায় তার চুল ঘন লম্বা সিল্কি মসৃণ কালো হোক। তার জন্য প্রয়োজন চুলের সঠিক পরিচর্যা। চুলে শুধু দামি ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু ইউজ করলে চুল সিল্কি হয় না। চুলকে সিল্কি করার জন্য প্রয়োজন চুলের গোড়ায় পরিমাণ মতো পুষ্টি সরবরাহ করা। আপনার চুল যদি প্রয়োজনমতো পুষ্টিস পায় তাহলে অবশ্যই আপনার চুল ঘন লম্বা হবে।


চুলকে ঘন লম্বা করতে নিম তেল খুবই উপকারী। নিম তেল আমাদের মাথার স্কাল্পকে  সতেজ রাখে এবং চুলের গোড়ায় পুষ্টি সরবরাহ করে। নিম তেলে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টাসেপটিক  ও এন্টি ফাঙ্গাল, অ্যালকালয়েড থাকে যা চুলকে ভালো রাখতে এবংস্কাল্পকে সুস্থ রাখে।

নিম তেলের উপকারিতা ও অপকারিতা

চুলের যত্নে নিম তেলের উপকারিতা তো অনেক রয়েছে যার কয়েকটি নিচে দেওয়া হল,

  • চুলে নিয়মিত নিয়মের তেল দিলে চুলের গোড়া শক্ত হয়।
  • নিমের তেল চুলে দিলে চুল ঘন লম্বা ও মজবুত হয় যার ফলে চুল ভেঙ্গে যায় না।
  • নিমের তেলে প্রচুর পরিমাণ ফ্যাটি অ্যাসিড,কোলাজেন থাকে যা মাথার ত্বককে সুস্থ রাখে।
  • মাথায় বিভিন্ন রকমের এলার্জি বা ফুসকুড়ি জনিত সমস্যা থাকার ফলে মাথা চুলকায় কিন্তু নিম তেল ব্যবহারের ফলে সেই সকল সমস্যা দূর হয়ে যায়।
  • মাথার ত্বক অনেক সময় বিভিন্ন রকমের ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাক দ্বারা আক্রান্ত হয়। নিম তেলে উপস্থিত এন্টিঅক্সিডেন্ট সেই সকল ব্যাকটেরিয়া এবং ছত্রাক কে ধ্বংস করে।
  • নিমের তেল ব্যবহারের ফলে চুলের রুক্ষ সূক্ষ্ম ভাব কেটে যায় যার ফলে চুল হয়ে ওঠে ঝলমলেও সতেজ।
  • যাদের মাথায় উকুনের সমস্যা তারা যদি নিম এর পাতা বা নিম তেল ব্যবহার করে তাহলে উকুন দূর হয়ে যায়।
আপনি যদি ঝলমলে সতেজ ঘন লম্বা চুল চান তাহলে অবশ্যই চুলের যত্নের ব্যাপারে সতর্ক হবেন পাশাপাশি চুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার করবেন তাহলে অবশ্যই আপনি সুন্দর চুলের অধিকারী হবেন।

অপকারিতা

নিমের তেলের যেমন অনেক উপকারী দিক রয়েছে ঠিক তেমনি কিছু অপকারিতাও রয়েছে। অপকারিতা গুলো হল,

  • নিমের তেল ব্যবহারের পরে যদি কোন রকম শ্বাসকষ্ট বা অ্যালার্জির জন্য সমস্যা দেখা দেয় তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করবেন

  • যারা প্রথমবার নিমের তেল ব্যবহার করবেন তারা চেষ্টা করবেন অল্প করে ব্যবহার করতে নয়তো সমস্যা হতে পারে।
  • নিমের তেল ব্যবহারের পরে যদি কোথাও লালচে ভাব বা কাল যে দাগ হয় তাহলে অবশ্যই সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে এবং ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।
  • নিমের তেল কখনোই আলাদা ব্যবহার করবেন না সাথে সব সময় মেথি অথবা নারিকেল তেল ব্যবহার করবেন।
  • নিমের  তেল গর্ভনিরোধক  হিসেবে কাজ করে তাই গর্ভবতী অবস্থায় নিমেরতেল ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

নিমের তেল ব্যবহারের নিয়ম

নিমের তেল ব্যবহারে সঠিক নিয়ম অনেকেই জানেন না। সঠিক নিয়মে নিয়মিত তেল ব্যবহার না করলে উপকার হয় না আসুন জেনে নেই নেমে তেল ব্যবহারের সঠিক নিয়ম,

নিমের তেল প্রতি রাতে ঘুমানোর পূর্বে পুরো মাথায় আলতো ভাবে মেসেজ করে নিবেন এবং সকালে ঘুম থেকে উঠে শ্যাম্পু অথবা ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল পরিষ্কার করে নেবেন। আপনি যদি রাতে তেল না ব্যবহার করে দিতেলের সাথে মেথি কালোজিরা অথবা জোজোবা ব্যবহার করলে  তেলে সুগন্ধ আসে পাশাপাশি চুলে করে তোলে সফট এবং সিলকি। চুলের যত্নে নিম তেলের ব্যবহার খুবই উপকার করে  ফলে আপনার চুল হয়ে উঠবে ঘন মসৃণ ও ঝলমলে।

খুশকির জন্য নিম পাতার ব্যবহার?

শীতকালে আমাদের ত্বক খুব শুষ্ক হয়ে যায় ফলে মাথায় খুশকি তৈরি হয়। খুশকি হওয়ার মূল কারণ হলো চুলের গোড়ায় পর্যাপ্ত পরিমাণ কোলাজেন ও ফ্যাটি অ্যাসিড এর ঘাটতি। নিমের তেলে প্রচুর পরিমাণ ফ্যাটি অ্যাসিড ও কোলাজেন থাকে তাই খুশকির জন্য নিম পাতার ব্যবহার খুবই উপকারী। চুলের যত্নে নিম পাতার ব্যবহার অনেক সুফলময়ী।

নিমের পেস্ট চুলে লাগানো কি ভালো?

প্রাচীন কাল থেকেই নিম পাতার ঔষধি গুন নিয়ে অনেক লেখালেখি এবং চর্চা রয়েছে। প্রাচীনকালের মানুষেরা যে কোন রকমের সমস্যায় গাছ-গাছড়া দিয়ে নিরাময় পেয়েছেন তাই নিবিড় পাতার উপকারিতা সম্পর্কে অবগত না থাকার কোন সুযোগ নেই। ঠিক তেমনি চুলের যত্নেও নিম পাতার উপকারিতা অনেক বেশি।
আর কেউ যদি নিয়মিত নিমপাতা পাঠাতে বেটে পেস্ট তৈরি করে চুলে লাগায় তাহলে তার চুল অন্য দশজনের চুল থেকে মজবুত এবং ঘন হবে। চুলের যত্নে নিম পাতার তেল যেমন খুব উপকারী ঠিক তেমনি নিমের পেস্ট ও খুব উপকারী। নিমের পাতা পেস্ট করে তার সাথে যদি মেহেদী মিশিয়ে চুলে লাগানো হয় তাহলে চুলের গোড়া মজবুত হয়।
উজ্জ্বল ঝলমলে প্রাণবন্ত চুল সকলেই চাই। চুল মূলত নারীদের আকর্ষণ তাই চুলকে সুস্থ সবল ঘন মজবুত সতেজ রাখতে নিম পাতার উপকারিতা ব্যবহার অপরিহার্য। চুলকে ঘন মজবুত করতে নিমের পেস্ট চুলে লাগানো উচিত তাহলে চুল ঘন হবে এবং পুষ্টি পাবে যার ফলে চুল ভেঙে যাবে।

নিম পাতার রস চুলে দিলে কি হয়?

নিম পাতার রস চুলে দিলে চুল হয়ে ওঠে হিন্দি এবং সতেজ। নিমপাতা বেটে রস বলেছে কে নিয়ে তার সাথে হলুদ বা মেহেদি পাতা অথবা মেথি দানা পিছে যদি চলে লাগানো হয় তাহলে চুল পড়া দূর হয়ে যায়। নিম পাতার রস চলে গেলে নতুন চুল গজায় এবং চুলের ক্রোধ গ্রোথ বৃদ্ধি পায়। নিম পাতার রস চুলে দিলে মাথার ত্বকের সকল রকমের এলার্জি বা চুলকানি জনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাই পাওয়া যায়।

নিম পাতার রস নিয়মিত চুলে গেলে মাথার ত্বক ঠান্ডা থাকে এছাড়াও নিমপাতা রসে উপস্থিত আন্টি ফাংগাল ও আন্টি এক্সিডেন্ট চুলের গোড়ায় পৌঁছে চুলকে শক্ত করে যার ফলে চুল ভেঙে যায় না।চুলের গোড়ায় পর্যাপ্ত পরিমাণ কোলাজেন ও অ্যালকালয়েড উপস্থিত থাকার ফলে চুলের রুক্ষ ভাব কেটে যায় যার ফলে চুল হয়ে ওঠে সিল্কিও ঘন।

লেখকের মন্তব্য

চুলকে সুস্থ সতেজ ও সুন্দর রাখতে নিম পাতার ব্যবহার এর উপকারিতা দিক অনেক। আজকের এই পোস্ট দিতে আমি  নিমপাতা দিয়ে কিভাবে চুলের যত্ন করা যায, কিভাবে চুলকে সিল্কি করা যায় নিম পাতা ব্যবহার করে এই সকল বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আপনারা যদি আমার এই পোস্টটি পড়ে উপকৃত হন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন।

রূপচর্চা বিষয়ে এরকম আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে নিয়মিত আমার ওয়েবসাইটটি ভিজিট করবেন এবং সাবস্ক্রাইব করে পাশে থাকবেন। পরবর্তী পোস্ট পাবলিশ করা পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকবেন ধন্যবাদ।


এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

স্বাগতম বিডিরনীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url