ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

প্রিয় পাঠক বন্ধু আপনি কি ডায়াবেটিস নিয়ে চিন্তিত যে ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না ? আপনি যদি ডায়াবেটিস রোগীর খাবার সংক্রান্ত তথ্য জান্ততে চান হলে আপনি একদম ঠিক জায়গায় এসেছেন কারণ আজকের আর্টিকেলটিতে আমরা জানাবো যে ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না এবং কি কি খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

আজকে আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনারা আরো জানতে পারবেন যে ডায়াবেটিস রোগী কি খেজুর, মুড়ি, চিড়া, মধু, ডিম, আপেল এগুলো খাওয়া নিরাপদ নাকি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তাই আর্টিকেলটি না টেনে মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।

পোস্ট সূচিপত্রঃ ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

.

ভুমিকা-ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

ডায়াবেটিস রোগ মানেই হল খাবার দাবারের সীমাবদ্ধতা। কারণ ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য যে টোটকাটি সবথেকে বেশি কার্যকর সেটি হল খাবার তালিকা। এখন এই খাবার তালিকায় কি কি খাবার রাখলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকবে সেগুলো আমাদের জানা প্রয়োজন। তাই আমাদেরকে জানতে হবে যে ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না।

আমরা আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় এমন অনেক ধরনের সবজি খেয়ে থাকি যেগুলো একজন ডায়াবেটিসসে আক্রান্ত ব্যক্তির খাওয়া ঠিক নয়। এখানে ঠিক নয় বলতে আমি বোঝাচ্ছি যে কিছু কিছু খাবার রয়েছে যেগুলো খেলে ডায়াবেটিসের পরিমাণ বেড়ে যায়। তাই আজকের আলোচনার বিষয় হলো ডায়াবেটিস রোগী কি কি সবজি খেতে পারবে এবং খেতে পারবে না।

 ডায়াবেটিস হলে কি কি ফল খাওয়া যাবে না

এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যারা মনে করেন যে ডায়াবেটিস হলে কোন ফল খাওয়া যাবে না। কিন্তু এই কথাটি পুরো ভুল কারণ ডায়াবেটিস রোগীর ও শরীরে পুষ্টি ক্যালরি ভিটামিন প্রয়োজন তাই ডায়াবেটিস রোগীকে অবশ্যই সীমিত পরিমানে প্রতিদিন ফল খেতে হবে।

খাওয়ার ব্যাপারে একটু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে কারণ এমন অনেক ফল রয়েছে যেগুলো রক্তে সুগার এবং গ্লুকোজ কার্বোহাইড এর পরিমাণ বৃদ্ধি করে যার ফলে ডায়াবেটিস এর পরিমাণ বেড়ে যায়। তাহলে অবশ্যই আমাদেরকে সেই সকল ফল খেতে হবে যে সকল ফলে কার্বোহাইড্রেট এবং সুগারের পরিমাণ কম থাকে।

ডায়াবেটিস হলে যে সকল ফল খেতে হবে সেই ফলগুলো হলো ঃ আপেল আনারস কমলা শসা পাতা চেরি ফল পেয়ারা ড্রাগন ইত্যাদি ফল ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুব উপকারী।

ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তি যে সকল ফল খাবেন নাঃ কলা আম কাঁঠাল তরমুজ সফেদা এই ফর্ম গুলো ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের জন্য ক্ষতিকর। এই ফলগুলো খাওয়ার কারণে রক্তের সুগারের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় তাই ফলগুলো এড়িয়ে চড়ায় উত্তম।

ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের খাবার তালিকা হবে খুব সীমিত। আমরা আমাদের প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় অনেক রকমের সবজি খেয়ে থাকে যেগুলো শরীরের জন্য ভালো আবার ক্ষতিকর। ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদের জন্য সবজি খুব উপকারী কারণ সবজিতে উপস্থিত ফাইবার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে এবং রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীদেরকে সেই সকল সবজি খেতে হবে যেগুলোতে অধিক পরিমাণ ফাইবার, প্রোটিন, ভিটামিন, পানি, ভিটামিন সি এবং প্রচুর পরিমাণ এন্টি অক্সিডেন্ট বিদ্যামান।

ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীকে বেশি করে যে সকল সবজি খেতে হবে সেগুলো হলঃ বেগুন, কাঁচা পেঁপে, টমেটো, সজনে ডাঁটা, কচুর লতি,কচুরশাক, সবুজ শাক সবজি, পটল, ঝিঙ্গা,বরবটি, শসা, লাউ, উ করলা, সিম ইত্যাদি সবজি যেগুলোতে অধিক পরিমাণ ফাইবার উপস্থিত।

ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগী যে সকল সবজি খাওয়া হবে নাঃ আলু, মিষ্টি কুমড়া, কচু, ভুট্টা ইত্যাদি সবজির ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য খুব মারাত্মক তাই এগুলো খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

ডায়াবেটিসে খেজুর খাওয়া যাবে কি ?

ডায়াবেটিস হলেই যে খাবার তালিকা থেকে মিষ্টি জাতীয় খাবার একেবারে বাদ দিতে হবে সেরকম কোন কথা নেই কারণ রক্তের সুগারের পরিমাণ একেবারেই যদি কমে যায় তাহলেও কিন্তু বিপদ। তাই ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তি প্রতিদিন চাইলে৩-৪টি খেজুর খেতে পারেন।

আরও পড়ুনঃ ডায়াবেটিস রোগীর আজওয়া খেজুর খাওয়ার উপকারিতা

ডাক্তাররা জানিয়েছেন যে খেজুরে উপস্থিত ফাইবার, ভিটামিন,অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট খাদ্য হজমে খুব সহায়তা করে এবং রক্তে খুব কম পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট সরবরাহ করে যার কারণে ডায়াবেটিস বাড়ার কোন সম্ভাবনা থাকে না। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীর জন্য আসল আজও খাজুর খুব উপকারী।

ডায়াবেটিসে চিড়া খাওয়া যাবে কি ?

এখন গ্রীষ্মকাল আমের সিজন। এমন অনেক মানুষ রয়েছেন যাদের আম এবং চিড়া একসাথে খাওয়ার কথা ভাবলেই জিভে জল চলে আসে। কিন্তু তারা নিরুপায় কারণ তাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তারা চিন্তা করে যে ডায়াবেটিস হলে কি চিড়া খাওয়া যাবেনা?

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তি রা খেতে পারবেন কিন্তু প্রয়োজনের বেশি কোন কিছুই ডায়াবেটিস রোগীর জন্য ভালো নয়। তাই আপনি যদি ডায়াবেটিসের রোগী হয়ে থাকেন তাহলে আপনি সীমিত পরিসরে চিড়া খাবেন। আপনাকে জানানোর স্বার্থে বলে রাখি আপনি যদি মুখের স্বাদের জন্য অধিক পরিমাণ চিড়া খেতে থাকেন তাহলে আপনার রক্তে শর্করা এবং ট্রাই গ্লিসারাইড এর পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে।

পরিশেষে বলব যে ডায়াবেটিসে চিড়া খাওয়া যাবে কি এই প্রশ্নের উত্তর হল যে আপনি সীমিত পরিসরের চিড়া খেতে পারবেন।

ডায়াবেটিসে মুড়ি খাওয়া যাবে কি ?

ডায়াবেটিসের রোগীর মুড়ি খাওয়া কিন্তু অতটাও নিরাপদ নয় কারণ  মুড়ির আসল উপকরণ হলো চাল। হ্যাঁ বন্ধুরা আমরা সকলেই জানি যে  মুড়ি চাল থেকেই তৈরি হয় যেখানে ডাক্তাররা নিষেধ করেন যে ডায়াবেটিস রোগীর ভাতের পরিমাণ কম রাখতে সেখানে যদি আপনি প্রয়োজনের বেশি মুড়ি খান তাহলে তো সমস্যা থাকবেই।

মুড়ি ডায়াবেটিস রোগীর জন্য ক্ষতিকর কারণ মুড়িতে উপস্থিত গ্লাইসেমিক ইনডেক্স, স্ট্রারচ জেলেটিন রক্তের শর্করার পরিমাণ খুব অল্প সময়ে বৃদ্ধি করার মত ক্ষমতা রাখে। তাই ডায়াবেটিস রোগের মুড়ি খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত।

গাজর খেলে কি ডায়াবেটিস বাড়ে?

ডায়াবেটিস রোগীদের বিভিন্ন ফলমূল খাওয়ার সতর্কতা থাকলেও তাদের জন্য গাজর খাওয়ার কিন্তু কোন সীমাবদ্ধতা নেই। কারণ গাজরে উপস্থিত ফাইবার অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুব খুব খুব উপকারী। গাজরে উপস্থিত এন্টি অক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস রোগীর কোষ্ঠকাঠিন্য এবং বদ হজমের সমস্যা দূর করে।

আপনারা অনেকেই গুগলে খসে খসে করেন যে গাজর খেলে কি ডায়াবেটিস বাড়ে? না বন্ধুরা আপনাদের ঈদ ধারণাটি ভুল কারণ গাজর খেলে আপনার ডায়াবেটিস বাড়বে না। বরং আপনি যদি নিয়মিত প্রতিদিন গাজর খান তাহলে আপনার রক্তে শর্করার পরিমাণ সঠিক থাকবে। শরীরে ভিটামিন,ফোলেট এবং ক্যালসিয়ামের সরবরাহ করে গাজর। 

ডায়াবেটিসে কলা খাওয়া যাবে কি ?

ডায়াবেটিস রোগীদের যে সকল ফল খাওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হয় তার মধ্যে একটি অন্যতম ফল হল কলা। কলাতে উপস্থিত সুগার কার্বোহাইড্রেট স্টারস এবং সরল শর্করা ডায়াবেটিস এর মান বৃদ্ধি করতে খুব সফলএকটি ফল।

ডাক্তাররা প্রায় সময় বলেন যে ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তিরা পাকা কলা খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন কারণ পাকা কলাতে উপস্থিত অধিক পরিমাণ গ্লুকোজ রক্তের সুগারের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় যার ফলে ডায়াবেটিসের মাত্রা বাড়তে থাকে।

ডায়াবেটিসের রোগীদের কলা খাওয়ার ব্যাপারে ডাক্তাররা জানিয়েছেন যে, কাঁচা কলার রান্না করে খেতে পারেন এবং চাইলে বিচি কলা খেতে পারেন তবুও পাকা কলা খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন। তাই আমি আমার ব্যক্তিগত অভিমত থেকে বলব যে ডায়াবেটিসে কলা খাওয়া খুব মারাত্মক কারণ কলাতে উপস্থিত সুগার রক্তের সুগারের পরিমাণ বৃদ্ধি করে।

ডায়াবেটিসে মধু খাওয়া যাবে কি?

ডায়াবেটিসের রোগীদের মধু খাওয়ার ব্যাপারে একটু সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে কারণ আপনি যদি প্রয়োজনের অধিক পরিমাণ মধু খেয়ে ফেলেন তাহলে আপনার ডায়াবেটিস বেড়ে যেতে পারে। টাইপ টু ডায়াবেটিসের জন্য মধু খুব বিপদজনক কারণ মধুতে উপস্থিত গ্লাইসেমিক ইনডেক্স ইনসুলিন এর পরিমাণ কমিয়ে দেয়।

আরও পড়ুনঃ ডায়াবেটিস রোগীর খালি পেটে মধু খাওয়ার উপকারিতা

আপনি যদি ডায়াবেটিসের রোগী হয়ে থাকেন তাহলে প্রতিদিন সকালবেলা ১-২ চামচ মধু খাবেন এটা স্বাভাবিক কারণ মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ এন্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন যেগুলো আপনার শরীরকে পুষ্টি ,ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিনের সরবরাহ করবে যার কারণে হাড় সুস্থ থাকবে এবং ত্বক উজ্জ্বল থাকবে।

ডায়াবেটিস হলে কমলা খাওয়া যাবে কি ?

কমলা লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি, এন্টি অক্সিডেন্ট ক্যালসিয়াম ম্যাগনেসিয়াম পটাশিয়াম ফাইবার যেগুলো শরীরের জন্য খুব উপকারী। কমলা লেবুতে গ্লাইসেমিক ইন্ডেক্সের পরিমাণও খুব কম।
যে সকল পাঠক বন্ধুগণ আপনারা চিন্তায় আছেন যে ডায়াবেটিস হলে কমলা খাওয়া যাবে কি তাদের জন্য এটি একটি সুখবর কারণ কমলা লেবু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে খুব কার্য করে। কমলাতে উপস্থিত গ্লাইসেমিক ইনডেক্স এবং এন্টিঅক্সিডেন্ট রক্তে সুগার এবং শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

শেষ কথা ।ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না

প্রিয় পাঠক পাঠিকা আজকের আলোচনার মূল বিষয় ছিল ডায়াবেটিস হলে কি কি সবজি খাওয়া যাবে না। আজকের আর্টিকেলটি যদি মনোযোগ সহকারে পড়েন তাহলে ডায়াবেটিস হলে কি কি ফল খাওয়া হবে, কি কি সবজি খাওয়া যাবেন, কোন কোন উপাদান খাদ্য উপাদান শরীরের কি কি উপকার করে ইত্যাদি বিষয়ে জানতে পারবেন।

আপনি যদি নিয়মিত লাইফ স্টাইল সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হওয়ার জন্য কি কি প্রয়োজন এই সকল বিষয়ে জানতে চান তাহলে নিয়মিত আমার স্বাগতম বিডি ওয়েবসাইটে ভিজিট করবেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

স্বাগতম বিডিরনীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url