ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক - ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা

কিসমিস খাওয়ার উপকারিতাপ্রিয় পাঠক বন্ধু আপনি কি ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা এবং ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে জানেন । আপনি যদি ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা এবং ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।

ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক - ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা

আজকের আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়লে আপনি জানতে পারবেন ভাতের মাড় খেলে কি মোটা হয়, ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়ম ও ভাতের মাড় চুলে দিলে কি হয় এবং ভাতের মাড় চুলে দেয়ার নিয়ম।এছাড়াও ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা বা ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক গুলো জানার জন্য শুরু থেকে পুরো আর্টিকেলটি পড়ার জন্য অনুরোধ রইলো।

পোস্ট সূচিপত্রঃ ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা ও ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা

.

ভুমিকা - ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক ও ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা

ভাতের মাড় হল এমন একটি খাদ্য উপাদান যে উপাদানটি প্রতিদিন দেখা যায় এবং অনেকেই এই ভাতের মাড়টিকে ফেলে দেয়। এখন বিষয় হল ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা অনেক সেগুলো আমরা জানিনা ঠিক তেমনি ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক রয়েছে সেগুলো বিষয়ে আমরা সচেতন নয়।

ভাতের ফ্যান বা ভাতের মাড় শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য উপকারী ঠিক তেমনি ভাতের মাড় রূপচর্চার জন্য খুব উপকারী। আপনি যদি ভাতের মাড় মুখে দিলে কি হয় এবং ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়মনা জেনে থাকেন তাহলেও আজকে এই আর্টিকেলটির মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়ম এবং ভাতের মাড় মুখে দিলে কি হয়।

ভাতের মাড় খাওয়ার নিয়ম

আমরা অনেকেই ভাতের মাড়কে ফেলে দিই কিন্তু ভাতের মাড়ের যে রয়েছে অনেক ঔষধি গুন সেই বিষয়ে আমরা জানিনা। ডাক্তার এবং আয়ুরবিদরা জানিয়েছেন যে ব্যাক্তি প্রতিদিন একবাটি ভাতের মাড় খাবে সে প্রতিদিন ১৮ রকমের রোগ বালাই থেকে মুক্ত থাকবে। আপনিও যদি প্রাকৃতিক এবং ঘরোয়া উপায় আপনার শরীরে সুস্থ রাখতে চান তাহলে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় ভাতের মাড় যুক্ত করুন এবং ভাতের মাড় খাওয়ার নিয়ম মেনে ভাতের মাড় খাবেন।

আরও পড়ুনঃ  পেয়ারা খাওয়ার নিয়ম

এখন অনেকেই ভাবতে পারেন যে ভাতের মাড় খাওয়ার নিয়ম কি আজাইরা প্রশ্ন এগুলো কিন্তু না ভাতের মাড় খাওয়ার নিয়ম রয়েছে। এই নিয়ম মেনে যদি আপনি ভাতের মাড় খান তাহলে আপনার  ইউনিটি সিস্টেম স্ট্রং হবে এবং আপনি সুস্থ থাকবেন।

ভাতের মাড়ে যেহেতু অধিক পরিমাণ কার্বোহাইড্রেট, ফ্যাট রয়েছে তাই আপনি চেষ্টা করবেন ভাতের মাড় অথবা ভাতের ফ্যান যেটাই বলেন না কেন সন্ধ্যাবেলায় খেতে। ভাতের মাড় কখনোই খালি পেটে খাবেন না কারণ খালি পেটে ভাতের মাড় খেলে আপনার পাকস্থলীতে হজমের সমস্যা হতে পারে।

ভাতের মাড় খেলে কি মোটা হয়

আপনারা অনেকে ভাবতে পারেন যে ভাতের মাড় খেলে কি শরীর মোটা হয়ে যায়? এ সকল প্রশ্ন মাথায় আসা খুবই স্বাভাবিক কারণ ভাতের মাড়ে রয়েছে উচ্চমানের পুষ্টি উপাদান। তাহলে চলুন এখন জেনে নেই যে ভাতের মাড় খেলে কি মোটা হয় নাকি হয় না।

আপনার শরীর যদি অনেক রোগা, চিকন পাতলা দুর্বল হয়ে থাকে তাহলে আপনার জন্য ভাতের মাড় বা ভাতের ফ্যান খাওয়া খুব উপকারী। ভাতের মাড়ে উপস্থিত কার্বোহাইড্রেট আপনার শরীরে পুষ্টি সরবরাহ করবে এবং আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে। ভাতের মাড়ের পুষ্টি উপাদানের কারণে আপনার শরীরের দুর্বলতা কেটে যাবে।

এখন প্রশ্ন হল ভাতের মাড় খেলে কি মোটা হয়? আপনি যদি প্রয়োজনে তুলনায় অধিক পরিমাণ ভাতের মাড় খান তবে আপনার শরীরের ওজন বৃদ্ধি পেতে থাকবে। অধিক পরিমাণ ভাতের ফ্যান খাওয়ার কারণে আপনার কোলেস্টেরলের পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে এবং শরীরে পানি জমা হতে থাকবে। শরীরে অধিক পরিমাণ পানি জমা হয়ে গেলে আপনার ওজন বৃদ্ধি পেতে থাকবে তাই ভাতের মাড় অধিক পরিমাণ খেলে শরীর মোটা হয়।

ভাতের মাড় খাওয়ার উপকারিতা

আমরা ভাত রান্না করার সময় অধিক পরিমাণ পানি দিয়ে চাল সেদ্ধ করে সেই পানি ঝেরে ফেলে দিই। আমরা অনেকেই জানিনা যে ভাতের প্রায় ৬০% পুষ্টি উপাদান মাড় বা ফ্যান হিসেবে আমরা অপচয় করি। চিকিৎসা বিজ্ঞানে উল্লেখিত রয়েছে যে যে সকল মানুষের শরীর পুষ্টিহীনতায় ভোগে তারা প্রতিনিয়ত তিন বেলা ভাত খায় কিন্তু তারা ভাতের প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান ভাতের মাড় বা ফ্যান হিসেবে ঝেড়ে ফেলে দেয়।

আরও পড়ুনঃ মধু খাওয়ার উপকারিতা

ডাক্তাররা ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা বা ভাতের মাড় খাওয়ার উপকারিতা নিয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ উক্তি দিয়েছেন যেগুলো মেনে চললে আমরা আমাদের শরীরকে প্রায় ৫০ ভাগ সুস্থ রাখতে পারব বাকি ৫০ভাগ অবশ্যই শরীর যত্ন নিতে হবে। তাহলে চলুন আমরা এখন জেনে নিই ভাতের মাড় খাওয়ার উপকারিতা বা ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা গুলো কি কি,

  • ভাতের মাড় বা ভাতের ফ্যানে উপস্থিত কার্বোহাইড্রেট আমাদের শরীরে এবং রক্তের শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখে।
  • ভাতের মাড় যেহেতু তরল জাতীয় পদার্থ তাই ভাতের মাড় খেলে আমাদের শরীর ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা পায়।
  • ভাতের মাড়ে অধিক পরিমাণ ফাইবার উপস্থিত। এছাড়াও ভাতের মাড় নরম হওয়ায় এটি কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে দ্রুত উপশম ঘটায়।
  • ভাতের মাড়ে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। তাই নিয়মিত ভাতের মাড় খেলে আমাদের ত্বক উজ্জ্বল থাকে।
  • ভাতের মাড়ে উপস্থিত ফ্যাট, ভিটামিন, মিনারেল আমাদের শরীরের যাবতীয় ঘাটতি দূর করে এবং শরীরকে পুষ্টি যোগায়।
  • শারীরিক দুর্বলতা কাটিয়ে তুলতে ভাতের মাড় বা ভাতের ফ্যান খাওয়ার রয়েছে অনেক উপকারিতা কারণ ভাতের ফ্যানে উপস্থিত আন্টিইনফ্লামেটরি বৈশিষ্ট্য দ্রুত শারীরিক দুর্বলতা কাটিয়ে তুলে।
  • ছোট বাচ্চাদের পর্যাপ্ত পরিমাণ পুষ্টির সরবরাহ এবং শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ভাতের ফ্যান খাওয়া অনেক নিরাপদ এবং উপকারী।
  • হালকা হালকা গরম ভাতের মাড়ের সাথে হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে খেলে সর্দি-কাশি ভালো হয়ে যায়।
  • ভাতের মাড় উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।
  • ভাতের মাড় পাতলা পায়খানা ডায়রিয়া প্রতিরোধ করতে সক্ষম।
  • ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়ম

আমরা এতক্ষণে জানলাম যে ভাতের মাড় খেলে শরীরের জন্য উপকারী কিন্তু আমরা অনেকেই জানিনা যে ভাতের মাড় মুখে দিলে ও অনেক উপকার হয়। আমরা সকলেই চাই আমাদের ত্বককে উজ্জ্বল এবং টানটান রাখতে তার জন্য বিভিন্ন উপটান প্রয়োগ করি কিন্তু ঘরে উপস্থিত ভাতের মাড় মুখে লাগালে আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতার দ্বিগুণ বেড়ে যায়।

ভাতের মাড় দিয়ে রূপচর্চা করার পূর্বে আমাদেরকে জানতে হবে ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়ম। আপনি যদি ভাতের মাড় দিয়ে রূপচর্চা করতে চান তাহলে প্রথমেই আপনাকে ভাত থেকে মাড় ঝেড়ে নিয়ে মাড় ঠান্ডা করতে হবে এবং তার মধ্যে হালকা পরিমাণ বেসন লেবুর রস দিয়ে পেস্ট বানিয়ে আপনার মুখে ক্রাব করতে থাকুন।

প্রায় ১০ থেকে ১৫ মিনিট স্ক্রাব করার পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিবেন। যখন আপনি মুখ ধুয়ে নেবেন তখন আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন যে আপনার ত্বক কতটা টান টান এবং উজ্জ্বল হয়েছে। আশা করছি আপনি বুঝতে পেরেছেন ভাতের মাড় মুখে লাগানোর নিয়ম।

ভাতের মাড় মুখে দিলে কি হয়

অনেকেই জানতে চাই যে ভাতের মার মুখে দিলে কি হয়? তাদের উদ্দেশ্যে বলবো যে আপনারা যদি প্রাকৃতিক উপায়ে আপনার ত্বককে সুন্দর রাখতে চান কোন রকমের প্রোডাক্ট ব্যবহার না করে তাহলে আপনার জন্য ভালো একটি উপকরণ হলো ভাতের মাড়।

আপনার ত্বকে যদি ব্রণ হয়ে থাকে তাহলে ভাতের মাড় দিলে ব্রনের দাগ উঠে যাবে। এছাড়াও আপনার হাতে মুখে শরীরের কোন জায়গায় যদি রোদে পড়া বা কালচে ভাব থাকে। রোদে পড়া বা কালচে ভাব দূর করার জন্য ভাতের মাড় রোদে পড়ার স্থানে লাগিয়ে রেখে পনেরো মিনিট পর ধুয়ে ফেললে কাল যে ভাব কমে যায়।

ভাতের মাড় চুলে দিলে কি হয় - ভাতের মাড় চুলে দেওয়ার নিয়ম

আমরা অনেকেই জানিনা ভাতের মাড় চুলে দিলে কি হয় এবং ভাতের মাড় চুলে দেওয়ার নিয়ম। প্রথমে আসি ভাতের মাড় চুলে দিলে কি হয় এই বিষয়ে , ভাতের মাড় চুলে দিলে চুল সিল্কি হয় চুল ঘন এবং উজ্জ্বল হয়। ভাতের মাড়ে উপস্থিত অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চুলের আগা ফাটা রোধ করে এবং চুলকে করে তুলে স্মুথ এবং সিল্কি।

এবার আলোচনার বিষয় হলো ভাতের মাড় চুলে দেওয়ার নিয়ম। ভাতের মাড় চুলেদেওয়ার জন্য প্রথমে ভাতের মাড় ঠান্ডা করে নিতে হবে এবং ব্রাশ বা হাতের সাহায্যে আস্তে আস্তে মাথার স্কাল্প এ দিতে হবে। আপনি চাইলে ভাতের মাড়ের সাথে লেবুর রস এবং মেহেদি পাতাও দিতে পারেন তাহলেও চুলের গোড়া শক্ত হবে এবং মাথার চুলকানি ও খুশকি দূর হবে।

ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক - ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা

ভাতের মাড় খাওয়ার উপকারিতার সাথে সাথে ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক বা ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতাও রয়েছে। ভাতের মার খেলে আমাদের শরীরের যে সকল ক্ষতি হয় সেগুলো আমাদের জানা প্রয়োজন কারণ অধিক পরিমাণ ভাতের ফ্যান খেলে আমাদের শরীরে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। তাহলে চলুন এখন জেনে নেই ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক বা ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা গুলো কি কি,

  • প্রয়োজনের অধিক পরিমাণ ভাতের মাড় খেলে শরীরের ওজন বৃদ্ধি পায় যার আপনি অতিরিক্ত মোটা হয়ে যেতে পারেন।
  • ভাতের মাড় যেহেতু তরল জাতীয় খাবার তাই অধিক পরিমাণ ভাতের মাড় খেলে ডায়রিয়া পাতলা পায়খানা সমস্যা হতে পারে।
  • ভাতের মাড়ে পরিমাণমতো ফ্যাট রয়েছে তাই পরিমাণ ভাতের মাড় খেলে আপনার শরীরে, রক্তে, লিভারে, চর্বি জমার সম্ভাবনা থাকে।
  • অধিক পরিমাণ ভাতের মাড় খাওয়ার কারণে আপনার কোলেস্টেরল বাড়তে পারে।
  • ভাতের মাড়ে খুব সামান্য পরিমাণ অ্যালকোহল রয়েছে তাই আপনি যদি প্রতিদিন ওধিক পরিমাণ ভাতের মাড় খান তাহলে আপনার ঘুম বেশি হবে।
  • রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যায়।
  • অতিরিক্ত পরিমাণ ভাতের মাড় খেলে রক্তচাপ বৃদ্ধি পেতে পারে।

লেখক এর শেষ কথা -  ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক ও ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা

আমার প্রিয় পাঠক বন্ধুরা এতক্ষণ আর্টিকেলটি পড়ে আপনারা নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন ভাতের মাড়ের ক্ষতিকর দিক বা ভাতের ফ্যান খাওয়ার অপকারিতা ভাতের ফ্যান খাওয়ার উপকারিতা এবং চুলের ও ত্বকের যত্নে ভাতের মাড়ের উপকারিতা।

আপনি যদি আজকের আর্টিকেলটি পড়ে উপকৃত হন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে আমাকে জানাবেন এবং রূপচর্চা স্বাস্থ্য সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য জানতে নিয়মিত  স্বাগতম বিডি ওয়েবসাইটটি ভিজিট করবেন। এতক্ষণ মনোযোগ সহকার আর্টিকেলটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

স্বাগতম বিডিরনীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url